সাম্প্রতিক সময়ে অনেকেই ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে স্ট্যাটাস বা কমেন্ট করে জানতে চান, এমপিএইচ/পাবলিক হেলথে মাস্টার্স করা নিয়ে। এগুলো অনেকেরই প্রায় জানা কথা, তবুও জানতে চেয়েছেন, এ নিয়ে বিভিন্ন গ্রুপে সিনিয়রেরাও পূর্বে অনেকবার লিখেছেন, বলেছেন। তবুও যেহেতু জানতে চেয়েছেন তাই সবার কথাগুলো একত্রে করে আবার লিখছি। দেখুন, এমপিএইচ কোন বেসিক এডুকেশন না, এটা প্রফেসনাল ডিগ্রী। অর্থাৎ একটা সুনির্দিষ্ট কাজের জন্য আপনাকে দক্ষ ও যোগ্য করে তোলার ডিগ্রী। তাই ডিগ্রী করবেন কি না করবেন এই সিদ্ধান্ত চাইবেন না, বরং নিজের কাছে প্রশ্ন করুন, কেন করবেন এই ডিগ্রী?
এই ডিগ্রী আপনাকে জনস্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত কাজে বাস্তব ক্ষেত্রে আপনার জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করবে। নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে চাকরি পেতে সামান্য সহযোগিতা করবে। আগেই স্পষ্ট করি, সামান্য সহযোগিতা। কারণ প্রায় সকল চাকরির ক্ষেত্রেই আপনার স্নাতকের বিষয়টিকেই প্রধান হিসেবে গুরুত্ব দেওয়া হয়, এক্ষেত্রে এমপিএইচ অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকতে সামান্য কিছু সহযোগিতা করবে। যেমন চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে চিকিৎসকই নেবে, কোন এমপিএইচ ধারী চিকিৎসক থাকলে তিনি তুলনামূলক গুরুত্ব পাবেন আবার পুষ্টি সংক্রান্ত প্রজেক্টের যেকোন পদেই সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাবে পুষ্টিবিজ্ঞানের স্নাতকেরা, এমপিএইচ থাকুক আর নাই থাকুক, তবে থাকলে একটু বেশি গুরুত্ব পাবেন।
আর নির্দিষ্ট যে যে ক্ষেত্রে কাজ করবেন সে সে ক্ষেত্রের স্নাতক ও স্নাতকোত্তর এর পাশাপাশি এমপিএইচ আপনাকে এগিয়ে রাখবে। অতএব, আপনার করনীয় আপনাকেই ঠিক করতে হবে।
কোথায় করবেন, সে সম্পূর্ণরূপে আপনার স্বাধীন সিদ্ধান্ত ও পকেটের জোরের উপর নির্ভর করবে। সবচাইতে যে প্রশ্ন বেশি জিজ্ঞাসা করেন ডাক্তারেরা, তা হল বিএমডিসি স্বীকৃত কিনা? নিপসম (বিএসএমএমইউ এর অধীনস্থ, নিপসম সহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান)
ভর্তির যোগ্যতা
MBBS/BDS degree recognized by BM&DC + one year internship/residency/equivalent training in a recognized hospital recognized by BM&DC
BSc in nursing/Medical Technology/Alternative Medicine (Homeo/Unani/Ayurvedic)+ 1 year internship + 2 years job experience
এমপিএইচ ডিগ্রীর সাথে বিএমডিসির স্বীকৃতির সম্পর্ক কি? আসলে নেই, আবার আছে। আপনি যেকোন উদ্দেশ্যে এমপিএইচ ডিগ্রী করবেন, বা যেকোন ডিগ্রী করবেন, বিএমডিসি স্বীকৃতি দিক না দিক কিছু আসে যায় না, ইউজিসি স্বীকৃতি আছে কিনা এটাই দেখার বিষয়। তবে শর্ত থাকে যে, আপনি যদি সরকারী চাকুরি করেন এবং এমপিএইচ ডিগ্রীর বদৌলতে পদোন্নতি পেতে চান তাহলে আপনাকে বিএমডিসির স্বীকৃতির প্রয়োজন হবেই। দ্বিতীয়ত, আপনি সরকারী বা বেসরকারী কোন মেডিকেল কলেজের শিক্ষক হতে চাইলেও বিএমডিসির স্বীকৃতির প্রয়োজন হবেই। অতএব, সিদ্ধান্ত আপনার।
এরপর কোথায় ডিগ্রী করবেন, সেটা নিয়ে তিনটি জিনিস ভাবতে বলবো-
১) কত টাকা দিতে পারবেন?
২) কত সময় দিতে পারবেন? (উইকেন্ড নাকি ফুলটাইম?)
৩) আপনি কি ডিগ্রীটা কোনরকমে করতে চান নাকি আসলেই বেশ কিছু শিখতে চান?
৪) আর সবশেষে, যে উদ্দেশ্যে ডিগ্রীটার জন্য সময় ও টাকা ব্যয় করবেন সেটা কোথায় করলে আপনার উদ্দেশ্য পূরণ হবে।
পরের মুখে ঝাল খাবেন না, আপনি পর্যাপ্ত শিক্ষিত (ইতোমধ্যে স্নাতক বা তারও অধিক), তাই আপনার পদক্ষেপ হবে সু-বিবেচনা প্রসূত। আপনার সদিচ্ছা , সুচেষ্টা ও আগ্রহ, আপনাকে যেমন অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে আবার তেমনি বিক্ষিপ্ত পদক্ষেপ আপনার ডিগ্রীগুলোকে নামের পাশে বয়ে নিয়ে বেড়ানোর বোঝাও তৈরী করতে পারে। তাই জেনে বুঝেই ক্যারিয়ার গড়ুন পাবলিক হেলথে। তবে আপনি চাইলে অনলাইনেও করে নিতে পারেন আপনার পছন্দের এই এমপিএইচ ডিগ্রীটি।  শুভকামনা সবার জন্য।
লেখক : ডাঃ অনুপম দাস,  চিকিৎসক ও জনস্বাস্থ্য গবেষক । 
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
About Author

Voicebd Media

1 Comment

    Excellent write up.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *